মুড়ি তৈরির কারখানা এখন চন্দনাইশ পৌরসভায়

Uncategorized, চন্দনাইশ

মুড়ি তৈরির কারখানা এখন চন্দনাইশে

মুড়ি তৈরির কারখানা এখন দৈক্ষিণ চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলা পৌরসভা এলাকায়। মুড়ি মানুষের একটি নিত্য প্রয়োজনীয় বস্তু। বিশেষ করে রমযান মাসে ইফতারে সময় মুড়ি অত্যাবশ্যকীয়। মুড়ির চাহিদা সারাবছর থাকলেও রোজার সময় এর উৎপাদন আর বিক্রি দুইটা বেড়ে যায় বহুগুণ। এই মুড়ি তৈরির জন্য অনন্য অত্যাধুনিক মেশিন এখন চন্দনাইশ পৌরসভায়। সাম্প্রতিক অত্যাধুনিক মেশিনের মাধ্যমে মুড়ি উৎপাদন করা হচ্ছে চন্দনাইশ পৌরসভা ভবনের দৈক্ষিণ পাশে সুজিত বড়ুয়া নামে এক ব্যক্তি। তার মতে সুস্বাদু মুড়ি তৈরির জন্য অল্প সময়ে এ এলাকায় পরিচিতি হয়ে উঠেছে তার ব্যবসা।
দৈক্ষিণ চট্টগ্রামে বেশ কয়েকটি উপজেলায় মুড়ি তৈরির মেশিন থাকলেও বর্তমানে চন্দনাইশে সুজিত বড়ুয়ার মুড়ির কারখানাটা অন্যতম। হাতে ভেজে ও মেশিনের সাহায্যে মুড়ি উৎপাদিত হয় এখানে। তবে মেশিনের সাহায্যে বিপুল পরিমাণ মুড়ি প্রতিনিয়ত উৎপাদিত হলেও এ এলাকার হাতে ভাজা মুড়ির চাহিদা এখনও অপরিবর্তিত। এখানে মেশিনে ভাজা মুড়ি সাদা ও লম্বা করতে কোন ধরনের ক্ষতিকর রাসায়নিক ইউরিয়া কিংবা সোডা ব্যবহার ছাড়া তৈরি হচ্ছে দেশী মুড়ি ও গুটি মুড়ি। কোন ধরনের ক্ষতিকর রাসায়নিক ইউরিয়া ব্যবহার না করায় দিন দিন এই মুড়ির চাহিদাও বৃদ্ধি পাচ্ছে। চন্দনাইশ মুড়ি মিলের স্বত্তাধিকারী সুজিত বড়ুয়ার বলেন, ৫০ কেজি চালের বস্তায় ৪৪-৪৫ কেজি মুড়ি হয়। প্রতি কেজি মুড়ি আমরা ৫৫ থেকে ৬০ টাকা দরে পাইকারি বিক্রি করি। পাইকাররা আবার সেই মুড়ি প্রতি কেজি কমপক্ষে ৬৫-৭৫ টাকা দরে খুচরা বিক্রি করেন। তিনি আরো বলেন, আমরা অনেক সময় মোবাইলে অনলাইনেও মুড়ির অর্ডার নিয়ে সরবারহ করে থাকি। তাছাড়া নির্দিষ্ট বাজারে স্থায়ী গ্রাহকরা মুড়ি ক্রয় করে থাকেন।

নিবেদক-
সুজিত বড়ুয়া
চন্দনাইশ মুড়ি মিল
মোবাইল -০১৮৩০-৯৯৭৮৩৮

Leave a Reply